অন্যের ব্যবহার করা টিস্যু, দাম ৬ হাজার ৭শ টাকা!

0
3
অন্যের ব্যবহার করা টিস্যু, দাম ৬ হাজার ৭শ টাকা!

অনলাইন ডেস্ক : টিস্যু ব্যবহারের পর তা ফেলে দিই আমরা। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রে হচ্ছে অদ্ভুত এক কাণ্ড! অন্যের নাক, মুখ মোছার টিস্যু, তাও আবার ব্যবহৃত। সেগুলোই নাকি বিক্রি হচ্ছে হাজার হাজার টাকায়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের লসএঞ্জেলসের একটি সংস্থা সত্যিই বিক্রি করছে এসব ব্যবহৃত ট্যিসু।

এ বছরে ৭৯ দশমিক ৯৯ ডলারে (বাংলাদেশি অর্থে ৬ হাজার ৭শ’ টাকায়) একটি ব্যবহৃত টিস্যুর বাক্স বিক্রি করেছে তারা। গত কয়েকমাস ধরে নাকি হটকেকের মতো বিক্রি হয়েছে এগুলো।

কিন্তু ব্যবহার করা টিস্যু কেন এত টাকায় বিক্রি হচ্ছে? মানুষই বা কেন কিনছে? সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, পুরো শীতে আমেরিকার একাধিক শহরে সর্দি-কাশি ফ্লুয়ের প্রকোপ বাড়ে। সেসময় নাকি অন্যের ব্যবহৃত টিস্যু ব্যবহার করলে দেহের রোগ প্রতিরোধক শক্তি বাড়ে। সেসঙ্গে কমে সর্দি-কাশি ও ফ্লুয়ে আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা।

এক জনের শরীর থেকে আসা জীবাণু ফ্লুয়ে আক্রান্ত ব্যক্তির শরীরে গেলে ঠিকমতো প্রভাব বিস্তার করতে পারে না উল্টো তৈরি হয় একটি অ্যান্টিবডি। এতে দেহের রোগ প্রতিরোধক শক্তি বাড়ে। যদিও এমন ব্যাখা কেবল ওই সংস্থারই।

অ্যারিজোনা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাইক্রোবায়োলজির অধ্যাপক চার্লস গেব্রা অবশ্য জানিয়েছেন, যে কারণে মানুষ এই ব্যবহৃত টিস্যুগুলো কিঞ্ছেন তা একদমই বিজ্ঞানসম্মত নয়। কারণ, এভাবে ভাইরাস কাজ করে না। সর্দি, কাশি ও ফ্লুয়ের সময় প্রায় ২০০ রকমের ভাইরাস মানুষের শরীরে সংক্রমণ ঘটায়।

ব্যবহৃত টিস্যু ব্যবহার করলেই যে দেহে অ্যান্টিবডি তৈরি হবে এমনটা ভাবার কোনো কারণ নেই। আর এজন্যই সর্দি, কাশির কোনো প্রতিষেধক এখনও পর্যন্ত তৈরি হয়নি। সূত্র : ফক্স নিউজ

আপনার মন্তব্য লিখুন............