কবি নাজমুল হুদা’র একগুচ্ছ কবিতা

0
101

জনৈক জবান আলী


দিনের পাখিগুলো কোথায় যেনো চলে যায় রাতে…
জবান আলীর কন্ঠে হাহাকার।
সারাদিন খেলা করে উঁচুনিচু আকাশে
দেহের ছায়ারা পাতার মতো ভেসে থাকে জলে।
সাজু বসন্তের ঝরা পাতা
সেওতো পাখির মতোই ভাসে চিরল জলে।
সকলি সুন্দর এ ধরনীতে কিছুই আলাদা নয়।
ঝাপসা চোখে মাছ কোটে ভাত রাঁধে জবান আলী
প্রত্যহ পাতা ঝরে জীবনের শুষ্ক সংলাপে।
ঘর সম্মুখে যে লম্বা শ্যামল গাছ
বন্ধুর কাঁধের মতো তার গায়ে হাত দিলে
কেমন যেনো আবেশ ছড়ায়, ভেতরটা কেঁপে উঠে
আত্মার ধুক্ধুক্ চলে আসে হাতের তলায়
মনে হয় প্রতি বিকেলের জন্য সে যেনো তৈরি হয়ে থাকে।
গাছগুলোও কি তবে কাদা জলে গড়া
হাসে কাঁদে সংসার করে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে !
রহস্য ঝুলে থাকে জবান আলীর দাড়ি গোঁফে।
যখন গোধূলি উতরায় পশ্চিম পুকুরের পাড়ে
কে যেনো হাত বাড়িয়ে ডাকে তারে বন পলাশের তলে
ঝরে পড়া পলাশের উপর ঠায় দাড়িয়ে থাকে সে…
লাজুক সুরুজ রঙে-ঢঙে তোলপাড় তোলে পলাশের দলে
আকাশের মতো নিশ্চল ডুবে থাকে খেয়া
কী অপরূপ নিসর্গ সঞ্চার শিহরিত চারিধার!
ধীর পায়ে পায়চারি করে জবান আলী…
এ আলোর ভ্রম এ মোহমায়া সবই তো শৃংখল।
তিনহাত উপর নিচে জীবনের দিনরাত
এ বিপুল আয়োজনে কে শোনে কার অভিঘাত?
দিনগুলো যেমন তেমন রাতগুলো যেন কেমন
এক দুই তিন দিন মাস বছর…
কড়িতে গোণা যায়না এতো পাপের বিমোচন।
রাত দ্বিপহরে পৃথিবী ঘুমায় জবান আলীর কাছে দূরে
মাছের মতো চোখ মেলে জবান আলী ঢুকে পড়ে
মানুষের বুকের ভিতর।

তারিখ: ১৩/০৪/২০১৮ খ্রী:

 

দুধবাটিতে তাঁরকাটা


কতকাল ধরে আমাবস্যায় রবে একলা বুকের চন্দ্রদ্বীপ
অসহায় বক তরুর মঞ্চে প্রতি বিকেলে সঙ্গীহীন
আমিতো ডরাই জ্যামিতি বাঁধন
রাঙা ঠোকরের দলির পত্তন।
দেখছি উঠোনে ঝরা বাসি ফুলে
জোক ধরে সেথা মাত্র দু’দিনে,
খসে পড়া আদর বিবরে জমে
তাচ্ছিল্যের কদর দেয়ালে ঝোলে,
অন্ধ কোকিল আমারেই কেনো অসঙ্গতির কাহিনী বলে।
আমিতো নই দূর্গা শারদ দাপরে ত্রাতা রাবণ ঘাতক।
চাই না আমি দুধবাটি জল ছল করুণা প্রমাদ প্রসূন।
জমাই চাকে মধুখোর মুখে বিষহীন আশা অন্তহীন…
হেয়ালে হাটি স্রোতের তটে,
বালুর নকশায় দীর্ঘশ্বাসে।
জলকেলি নয় জীবনকেলি,
দিনশেষে আমি একলা ফিরি।
মুখপোড়া চাঁদ উঠোন বাড়িতে আমায় নিয়ে তামাশা করে।
দু’চোখ ভরা তারার সাগরে নিয়ম ভাঙার তারকাটা
একলা শালিক শুন্য ঘাটে কলস ভরার করে খেলা।

তারিখ: ০৮-০৮-২০১৫ খ্রী:

 

প্রবোধের দর্পণ


আমার পৃথিবী অহরহ দোলে আচারের ভূমিকম্পে
যত তেতো স্বাদ ঐ কম্পাসের মাপে…
এতো সূক্ষ সুঁই-সুতো গোচরে পড়ে না নিদানে
ঋুলের আখেরে পরণের ছেঁড়া কুণ্ঠিত জমায়েতে
তিরস্কার, কতো উপহাস, কতো নাছোড় উল্লম্ফন
বাচোখে রেখে খুঁজতে শিখেছি উত্তরীয় আদর।
সরলে গরলে ফেপে উঠা ঐশর্যের আয়োজনে
কে হাসে ঐ কাষ্ঠ হাসি দেযালের দর্পণে।
ইঁদুরের মুখে হিসাব অজস্র মিলন মৃত্যু জন্ম বেদনার
লাল খাতায় জমা ছুতোর দায় কে নিতে চায় নির্দ্বিধায়
উদগ্র ভিড়ে পায়চারি করে নবডাঙ্গার ডাহুক
যে বকুল ঝরে পুকুরের জলে আমি তার দর্শক।
এতো আহ্লাদ, এতো সম্ভোগ, এতো তেল জলে মাখা প্রবোধ
কাকতাড়–য়ার ধোঁকাবাজিতে অস্থিরতায় সারস।
তারা ভরা বুকে জমতে পারে নিগার প্রভঞ্জন
সার্সি টেনে দেখতে শিখেছি বারির শিঞ্জন।

তারিখ: ২১-০৫-২০১৫ খ্রী:

 

ফিকে বসন্ত


ঘাসগুলো নুয়ে পড়েছে মোটা জলের উপর
পরিযায়ী হাঁসেরা শেওলার স্বর ভেদ করে
ধাঁরালো ঠোকরে শিকার করে সঞ্চিত জীবন
জলের হয়তো কিচ্ছু বলার নেই।
সূর্যটা ঢলে পড়েছে অশ্বথ গাছের বিছানায়
ক্লান্ত ব্যস্ত যাত্রায় ঝাক ঝাক পথিকেরা
প্রতিদিন ভরসার জালে গাথে বিভিন্ন বুনন
আঁধারের কাছে কি কিছুই চাওয়ার নেই?
হিম বিভায় ফাঁকা ময়দান আচ্ছন্ন হয়ে গেলে
উন্মুখ উৎসবে উদর ভরার উদ্যোগে
ডেরা ছেড়ে সদলবলে বেরিয়ে আসে মাংসাশীরা
বসন্ত বরণে কারো কোনো মাথা ব্যথা নেই।

তারিখ: ০১-০২-২০১৪ খ্রী:

 

হেঁটে যেতাম প্রজন্মান্তরে


এই রাতগুলো যদি ছাপানো যেতো গোটা গোটা অক্ষরে
শেষের পাতার আগের পাতায় দক্ষিণে শেষ প্রান্তরে,
সবাই যেতো এড়িয়ে ব্যস্ত চোখে দিন দুপুরে,
পড়ে রইতো অচ্ছুত হয়ে অনাদরে,
তার তরে।

কেউ একজন ভারি কাঁচে খুঁজে নিতো কোনো অবসরে,
একটা বিষন্ন আওয়াজ শোনা যেতো পাশের ঘরে
অলক্ষ্যে আসতো ধেয়ে কিছু নোনা জল পাঁজরে,
আশীষ মেখে দিতো অন্যের ছেলেরে,
রেশমি চাদরে।

যার দখলে রঙিন চোখে আনন্দে হৈচৈ ভিতর বাইরে,
সে যে হাত বদলের পসরা সাজায় হরেক ফাঁদে পঞ্চকরে।
সত্যি সত্য মিথ্যা সত্য সবই সত্য চিৎকারে…
খুশির বালিশ জড়ায় বুকে পাঞ্জা করে,
খুব ভোরে।

সবের সহায় চন্দ্র বদন বাচ্চা তারা সব ঘরে
অসহায় জন ভাসতে জানে না অমন সুখের অম্বরে।
সাধুবাণী দাও নিঃসংকোচে কেমন সুখে অন্যেরে!
বিস্মরণে ছোঁড়া কঙ্কর অলক্ষ্যে যায় অন্দরে,
বুক চিঁড়ে।

যদি কোনো ভরা ভাদরে জোৎস্নার জল জড়াতো চাদরে…
ফুলগুলো থাকতো চেয়ে চাঁদের মতো বাঁকা চোখ করে,
একটা আতঙ্ক ঘুমাতো আঁধারে চিরতরে।
হেঁটে যেতাম তোমাদের মতো প্রজন্মান্তরে,
হাত ধরে।

তারিখ: ০৪-০৯-২০১৮ খ্রী:

আপনার মন্তব্য লিখুন............