গোপালগঞ্জে ডাকাতি ও গনধর্ষণের আসামীদের দ্রুত বিচারের দাবী

0
206
গোপালগঞ্জে ডাকাতি ও গনধর্ষণের আসামীদের দ্রুত বিচারের দাবী

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : গোপালগঞ্জে দূর্ধর্ষ ডাকাত ও ধর্ষকদের বিচারের দাবীতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন কাশিয়ানী উপজেলার হাতিয়ারা গ্রামের ভূক্তভোগী পরিবার। আজ সকাল ১১টায় হাতিয়ারা মধ্যপাড়া বাদীনী নিজ বাসববনে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে রুপা বেগম তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, আমার স্বামী কুয়েত প্রবাসী। আমি আমার দুটি বাচ্চাকে নিয়ে স্বামীর বাড়ীতে থাকি। আমার বাড়ীতে হাতিয়ারা উচ্চ বিদ্যালয়ের এক শিক্ষিকা ভাড়া থাকে। ঘটনার দিন গত ২০ জানুয়ারী ২০১৮ ইং তারিখ রাত আনুমানিক দেড়টার সময় রবিউল মোল্লা গং এর ১০/১২ জনের সসস্ত্র ডাকাত বাহিনী আমার ঘরের জানালা কেটে প্রথমে ভাড়াটিয়া শিক্ষিকার রুমে ঢুকে পড়ে। এসময় ঐ শিক্ষিক তার স্বামী ও শ্যালীকা রুমে ছিল। ডাকাতদল শিক্ষিকার স্বামীকে বেধে প্রহর করে রক্তাক্ত জখম করে আমার রুমে ঢুকে পরে। আমার রুমে আমার দুই বাচ্চা ও আমার বোন ছিল। এরপর আমাদের চার মহিলাকে পৈচাশিকভাবে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। গন ধর্ষন শেষ করে রবিউল ও তার সহযোগীরা পালিয়ে যাবার সময় আমার ঘড় থেকে চার ভরি স্বর্ণ, নগদ ১ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা, চারটি মোবাইল ফোন ও কিছু দামী জামা কাপড় নিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে পরে দ্রুত আমরা গোপালগঞ্জ বিজ্ঞ আদালতে একটি মামলা দায়ের করি। মামলা নং- ৩৭/৬০। ঘটনার প্রায় এক বছর পরে ফোন ট্রাকিংয়ের মাধ্যমে মামলার আসামী ধরা পরে ও ডাকাতি এবং ধর্ষণের কথা ম্যজিস্ট্রেটের নিকট স্বীকার করে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ঘটনার সত্যতা পেয়ে বিজ্ঞ আদালতে রিপোর্ট প্রেরণ করে। এরপর বাকী আসামীগণ আত্মসমপর্ন করে। গত মাসে রবিউল মোল্লা ও তার সহযোগীরা হাইকোর্ট থেকে জামিনে বের হয়ে বিভিন্নভাবে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য ভয়ভীতি প্রদান করে আসছে। আমার ছেলেরা নিরাপদে স্কুলে যেতে পারেনা। আমরা বাইরে বের হতেও ভয় পাই। এমতাবস্থায় আমার পরিবারের নিরাপত্তা দাবী করে মামলাটি দ্রুত বিচার ট্রাইবুনালে হস্তান্তরের একান্ত দাবী জানাচ্ছি। রুপা বেগম ন্যায় বিচার চেয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন :

আপনার মন্তব্য লিখুন............