ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সড়কে ঘটছে দুর্ঘটনা, সৃষ্টি হচ্ছে ভয়াবহ যানজট

0
51
ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সড়কে ঘটছে দুর্ঘটনা, সৃষ্টি হচ্ছে ভয়াবহ যানজট
প্রতিকী ছবি

রণজিৎ মোদক : দিন দিন ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ মহসড়কের দু’পাশ ছোট হয়ে আসছে। এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ীরা অবৈধভাবে দখল করে ইট, বালু, পাথর ও বিভিন্ন টঙ্গ দোকান বসিয়ে সড়ক পথ দখল করে নিচ্ছে। এতে করে যানবাহন চলাচল দারুনভাবে বিঘ্ন হচ্ছে। প্রতিনিয়ত ঘটছে সড়ক দূর্ঘটনা, সৃষ্টি হচ্ছে যানজট।

রাজধানী ঢাকার পার্শ্ববর্তী শিল্প বন্দর নারায়ণগঞ্জ। ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সড়ক, সবচেয়ে ব্যস্ততম সড়ক পথ। এ সড়ক পথে ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত হাজার হাজার যানবাহন চলাচল করে। জীবন-জীবিকার লক্ষ্যেই নারায়ণগঞ্জ-মুন্সীগঞ্জ ও দক্ষিণ এলাকার হাজার হাজার মানুষ সড়ক পথে চলাচল করেন। সড়ক পথে যাতে যানজট সৃষ্টি না হয় সে লক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা লিংক রোড নির্মাণ করা হয়েছিলো সত্য কিন্তু তারপরও ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সড়ক পথের গুরুত্ব পূর্বের ন্যায় রয়েছে। ঢাকা-মুন্সীগঞ্জের অধিকাংশ যানবাহন ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সড়ক পথে চলাচল করে। তাই ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সড়ক পথের ওপর যানবাহন চলাচলের গুরুত্ব পূর্বের ন্যায় দ্বিগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সড়ক পথটি তেমন প্রশস্ত নয়। তার ওপর সড়ক পথের দু’পার্শ্বে এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ীরা অবৈধভাবে বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণ করে দেদার্ছে তাদের আত্মস্বার্থ রক্ষায় ইট-বালু, পাথর ব্যবসায় মেতে উঠেছে। এতে করে সড়ক পথে ধূলা-বালুময় পরিবেশ বিরাজ করছে। এসব দেখার কেউ রয়েছে বলে মনে হচ্ছে না! পথচারীদের মনে নানা প্রশ্নের সৃষ্টি হচ্ছে। বিশেষ করে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ বন্যার বাঁধগুলো আজ হুমকির সম্মুখীন। গুরুত্বপূর্ণ বাঁধের বিভিন্ন স্থানে অবৈধভাবে ভেঙে যানচলাচলের সুযোগ করে নিয়েছে স্বার্থান্বেষী দল। সড়ক পথ ও ফুটপাত নির্মাণ রুখে দিলে তবেই পথচারীদের যাতায়াত নিরাপদ হবে। সড়ক দূর্ঘটনার হার অনেকাংশ কমে যাবে বলে ভূক্তভোগী মহল মনে করেন।

এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুচিন্তা ভাবনা রয়েছে কিনা তা জানা যায় নি। জনৈক বাস যাত্রী বলেন, ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সড়ক পথ দিয়ে যাতায়াত খুব কষ্টসাধ্য ব্যাপার। এ সড়ক পথে চলাচল-ঘড়ি ধরে সম্ভব নয়। অথচ ১ ঘন্টার রাস্তা ৩/৪ ঘন্টা কেঁটে যাচ্ছে। মূলত যানজটের কারণে অনেকেই ১৫/২০ টাকার ভাড়ার স্থলে ৪৫/৫৫ টাকা ব্যয় করে নারায়ণগঞ্জ শহর ঘুরে ঢাকায় যাতায়াত করছে।

এদিকে পাগলা মুন্সীখোলা সিমেন্ট ব্যবসা কেন্দ্রটিও আজ তার ঐতিহ্য হারাতে বসেছে। একমাত্র যানজটের জন্য দুরাগত ব্যবসায়ীরা মুন্সীখোলা ব্যবসা কেন্দ্রে আসতে দ্বিধা-দ্বন্ধে ভূগছে। যানজট নিরসনে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ মহাসড়কের দু’পার্শ্বের অবৈধ দোকান পাট ও ব্যবসায়ীদের উৎখাত করা জরুরী হয়ে পড়েছে। এভাবে চলতে থাকলে আগামীতে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ মহাসড়ক যানচলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়বে। অসহায় যাত্রী সাধারণের চলাচল সুবিধা আর থাকবে না বলে সুধীমহল মন্তব্য করেন। ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সড়ক পথের দু’ধারে পাগলা-আলীগঞ্জ, দাপা ও ফতুল্লায় রয়েছে শত শত শিল্প প্রতিষ্ঠান। সে হারে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ মহাসড়ক পথের গুরুত্ব অপরিসীম। শিল্প ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান ও জন সাধারণের সুবিধার্থে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ (ডিএনডি) সড়ক পথের দু’ধারে ফুটপাত সহ অবৈধ দখলদারদের উৎখাত করা প্রয়োজন।

আপনার মন্তব্য লিখুন............

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here