নির্যাতনের একদিন পর গৃহপরিচারিকার মৃত্যু

0
38

অনলাইন ডেস্কঃ রবিবার জীবননগরে গৃহকর্ত্রী কর্তৃক নির্যাতিত এক পৃহপরিচারিকার মৃত্যু হয়েছে। নির্যাতনের শিকারে মৃত্যু গৃহপরিচারিকা লিলি খাতুন (৫০) উপজেলার আন্দুলবাড়ীয়া ইউনিয়নের রাজধানী পাড়ার আনসার আলীর স্ত্রী।

জানা যায়, জীবননগর সরকারি আদর্শ মহিলা কলেজের প্রভাষক পাপিয়া সারমিন ইতির নির্যাতনের শিকার হয়ে লিলি খাতুন শনিবার জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়। ঘটনার একদিনের মাথায় রবিবার চিকিৎসাধীন অবস্থায় লিলি খাতুনের মৃত্যু হয়েছে। গৃহপরিচারিকার পরিবার মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

নিহতের ছেলে শাহেদ হোসেন (২৩) বলেন, আমার মা লিলি খাতুন গত ২ সপ্তাহ আগে ২ হাজার টাকা মাসিক চুক্তিতে জীবননগর সরকারি আদর্শ মহিলা কলেজের প্রভাষক পাপিয়া সারমিন ইতির জীবননগরের বাসায় কাজে লাগে। আমার মা গত শুক্রবার সকালে আমাদের বাড়িতে আসে এবং বুধবার ইতির বাসায় ফিরতে আগ্রহ প্রকাশ করলে গৃহকর্ত্রী ইতি বলেন, শনিবার সকালের মধ্যে তার বাসায় যেতে হবে।

কিন্তু আমার মা তাতে রাজি না হওয়ায় ইতি শনিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে আমাদের বাড়িতে আসে। এবং জীবননগরে নিয়ে যেতে জোরপূর্বক টেনেহিঁচড়ে একটি আলমসাধু গাড়িতে তুলে নিয়ে যান। জীবননগরে যাওয়াকালে দেহাটি-সন্তোষপুর সড়কের কনটেক মিলের সামনে সে রাগের বশবর্ত্তী হয়ে মা’কে রাস্তার ওপর ফেলে দেন। এতে আমার মা মারাত্মকভাবে আহত হন। এ অবস্থায় ইতি অন্য একটি আলমসাধুতে তুলে দিয়ে আমাদের বাড়িতে পৌঁছানোর জন্য মা’কে পাঠিয়ে দেয়।

নিহত গৃহপরিচারিকার পুত্রবধূ বৃষ্টি খাতুন জানান, আমার শ্বাশুড়িকে ইতি জোরপূর্বক বাড়ি থেকে উঠিয়ে গাড়িতে করে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে আন্দুলবাড়ীয়া মিস্ত্রিপাড়া আমার বাপের বাড়ির সামনে শ্বাশুড়িকে অজ্ঞান অবস্থায় দেখতে পাওয়া যায়। এ সময় শ্বাশুড়ির গায়ের ব্লাউজ, শাড়ি ছেড়া ছিল এবং কাপড়-চোপড়ে রক্ত মাখা ছিল। সেই সঙ্গে বমিও করছিল। অবস্থা খারাপ হলে আমরা মা’কে জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করি এবং ভর্তির পর দিন রবিবার বিকালে মায়ের অবস্থা খারাপ হলে ডাক্তার চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে রেফার করেন। এবং সেখানেই কর্তব্যরত ডাক্তার আমার মাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত প্রভাষক পাপিয়া সারমিন ইতি বলেন, আমার সঙ্গে আলমসাধু যোগে আসার কথা ঠিক। তবে তাকে আমি গাড়ি থেকে ফেলে দিয়েছি তা ঠিক নয়। তিনি গাড়ি থেকে লাফ দিয়েছিলেন। আমি আসলে ষড়যন্ত্রের শিকার।

গৃপরিচারিকার এ মৃত্যুর ঘটনায় নিহতের পরিবার সুবিচার চেয়েছে। এবং তারা মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

শব্দপাতা ডট কম/তুষার অপু

আপনার মন্তব্য লিখুন............

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here