পুলিশের ভূমিকা প্রশংসনীয় : পলাশ

0
67
পুলিশের ভূমিকা প্রশংসনীয় : পলাশ

শব্দপাতা ডেস্ক : জাতীয় শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির শ্রমিক উন্নয়ন ও কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক আলহাজ্ব কাউসার আহমেদ পলাশ বলেছেন, একসময় আমাদের শ্রমিকরা তাদের দাবির জন্য রাজপথে মিছিল করতে নামলে পুলিশের লাঠিপেটার কারণে রাজপথে নামতে পারে নাই। মিছিল করতে নামলেই লাঠিপেটা আর গ্রেফতার করে কারাগারে বন্ধী করে রাখা হতো। কিন্তু এখন আর সেই পূর্বের অবস্থা নাই। পুলিশ শ্রমিকের বন্ধু। ‘মহান মে দিবস’ উদযাপন উপলক্ষে বুধবার সকালে চাষাঢ়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এক আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বিভাগীয় শ্রম দপ্তর নারায়ণগঞ্জ এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। মহান মে দিবসে এবারের প্রতিপাদ্য ‘শ্রমিক-মালিক ঐক্য গড়ি, উন্নয়নের শপথ করি।’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ।

পলাশ আরো বলেন, গত বছরের ডিসেম্বরে বিসিক এলাকায় উত্তপ্ত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। সেখানে মুজুরীর বিষয় নিয়ে হ-য-ব-র-ল সৃষ্টি হয়। আমি কারো নাম নিয়ে বলব না। একজন মালিককে উদ্দেশ্য করে বলছি তিনি এই বিষয়টাকে উস্কানি দিয়ে পরিস্থিতি ঘোলাটে করেছেন। অথচ দোষ শ্রমিকদের ঘাড়ে চাপিয়ে দিয়েছেন। শ্রমিক কেন মিছিল করে শ্রমিকের দোষ, পুলিশ কেন লাঠি চার্জ করে না পুলিশের দোষ। যিনি উস্কানি দেয় তার কোন দোষ নাই। সেইদিন পুলিশের ভূমিকা ছিল প্রশংসনীয়। কোন সমস্যা হলে জ্বালাও-পোড়াও, ভাঙচুর চলবে না। প্রয়োজনে আন্দোলন করে প্রশাসন ও কলকারকানা পরিদর্শকের সাথে আলোচনা করে সমস্যার সমাধান হবে।

শ্রমিকদের অধিকার আদায়ের বিষয়ে পলাশ বলেন, আমেরিকার শিকাগো শহরে রক্তের বিনিময়ে মে দিবস নামের এই দিনটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। শ্রমিকের অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষে এই দিনটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। দেশ স্বাধীন হওয়ার পরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২ সালে সারা বাংলার শ্রমিকদের বিশ্বের শ্রমিকদের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করে ঐক্যবদ্ধ করা চেষ্টা করেছেন। যেকোন সমস্যায় যেমন সকল মালিকরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে যায় কিন্তু অনেক অনেক শ্রমিক ফেডারশন এ মাঝে দ্বিধা-দ্বন্দ্বের কারণে আজকেও শ্রমিক আর অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়। শ্রমিকদের জন্য বর্তমান সরকার বিভিন্ন সুবিধার ব্যবস্থা করেছেন যা আগের কোন সরকার করেনি। শ্রমিকদের বেতন বৃদ্ধিতে ও অধিকার প্রতিষ্ঠায় একমাত্র বর্তমান সরকারের কৃতিত্ব রয়েছে। আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শ্রমিকদের অধিকার নিয়ে সবসময়ই সরব। তিনি অত্যন্ত শ্রমিকবান্ধব।

বিভাগীয় শ্রম অধিদপ্তরের পরিচালক ও রেজিষ্টার অব ট্রেড ইউনিয়ন মোঃ খোরশেদুল হক ভূঞার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ সেলিম রেজা, ইন্ডাষ্ট্রিয়াল পুলিশ সুপার মোঃ জাহিদুল ইসলাম, এক্সপোর্টার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ ১ম ভাইস প্রেসিডেন্ট মোঃ হাতেম, চেম্বার অব কমার্সের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট বিকেএমইএ এর পরিচালক মোঃ মোরশেদ সারোয়ার।

নিউজটি শেয়ার করুন :

আপনার মন্তব্য লিখুন............