সুনামগঞ্জ-৫ আসনে আ’লীগের মনোনয়ন না পেয়ে শামীমের ফেসবুকে স্ট্যাটাস

0
776

দোয়ারাবাজার প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জ-৫ আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদক শামীম আহমদ চৌধুরী ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। ফেসবুকের সেই স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করে সুনামগঞ্জ-৫ আসনের সাধারণ জনগণের মধ্যে চলছে নানা গুঞ্জন। অনেকে বলছেন ত্যাগী এই নেতাকে মনোনয়ন না দেওয়ায় কিছুটা বিতর্কে আছেন নেতাকর্মীরা। অপরদিকে সুনামগঞ্জ-৫ আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেয়েছেন বর্তমান সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক। আপনাদের সুবিধার্থে শামীম আহমদ চৌধুরী ফেসবুকে দেওয়া স্ট্যাটাসটি হুবুহু তুলে ধরা হলো-

আসসালামু আলাইকুম, আদাব। আমার প্রাণপ্রিয় সম্মানিত সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক-দোয়ারাবাজার) আসনের সর্বস্থরের জনসাধারণ। সর্বক্ষেত্রে মাননীয় নেত্রীর সিদ্ধান্ত’ই চূড়ান্ত……..

বিগত প্রায় ত্রিশ বছর ধরে রাজপথে লড়াই সংগ্রাম করে ছাতক দোয়ারায় আওয়ামীলীগকে সংঘটিত করেছি। শুধু মাত্র বঙ্গবন্ধুর আদর্শে রাজনীতি করার অপরাধে নিজের মায়ের কবরের পাশে পর্যন্ত দাঁড়াতে পারিনি। এভাবেই তীলে তীলে আওয়ামীলীগের দূর্গ করে তুলেছি এই ছাতক দোয়ারা কে। আমি আমার পরিবারের পাশে না থেকে ছাতক-দোয়ারা বাজারের মানুষের সাথে দিন-রাত কাটিয়েছি।আমি ভালবাসি আমার ছাতক-দোয়ারার মানুষকে। আপনাদেরকে’ই আমি আমার পরিবার মনে করি। সকল সভা-সমাবেশে আমার বক্তব্যে আমি একটি কথাই বলতাম আমি সংসদ সদস্য হই আর না হই আমি আপনাদেরই পাশে থাকতে চাই আজীবন। আমার দরজা আপনাদের জন্য ২৪ ঘন্টাই খোলা।আমার চলার পথে আপনাদের যে আন্তরিক ভালবাসা আর সহযোগিতা পেয়েছি এটাই আমার কাছে অনেক দামের, অনেক সৌভাগ্যের, পরম পাওয়া।

সুনামগঞ্জ-৫ আসনে আ’লীগের মনোনয়ন না পেয়ে শামীমের ফেসবুকে স্ট্যাটাস
শামীম চৌধুরীর ফেসবুকে দেওয়া স্ট্যাটাসের স্ক্রিন শট।

এই পাওয়া থেকে আমি কখনোও বঞ্চিত হতে চাইনা। তাই বার বার বলেছি, এমপি হতে না পারি, মানুষের এই ভালোবাসা ছেড়ে আমি কখনো যাবো না। তাই আপনাদের বলছি হতাশ হবেন না।

আপনাদের সকল আবেগ, অনুভূতি আর ভালোবাসাকে লালন করেই বলছি, আপনারা সাহস হারালে আমিও হাল ছেড়ে দিবো। আপনারাই আমার অদম্য শক্তি।আপনাদের কে সাথে নিয়ে এই নির্বাচনে নৌকা কে বিজয়ী করতে আমি আমার সর্বোচ্চ শ্রম ও চেষ্টা চালিয়ে যাবো ইনশাহ আল্লাহ।

আপনাদেরকে বলবো, আমাদের সবার চাইতে আমাদের দেশটা বড়। এই দেশের জন্য আমাদের নেত্রীর সিদ্ধান্ত অনেক বেশী মুল্যবান।আমরা সবাই এক এবং ঐক্যবদ্ধ থেকে নৌকার জন্য কাজ করে আমরা যেন শেখ হাসিনা’র সরকার কে আবার ক্ষমতায় নিয়ে আসতে পারি।এই সময়ে এটাই হোক আমাদের প্রতিজ্ঞা।

তাই, নেত্রীর সিদ্ধান্ত শিরোধার্য। আগামী নির্বাচন আমাদের অস্তিত্বের নির্বাচন। অনেক কঠিন ও গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচন। মনে রাখবেন নৌকা হেরে গেলে, হেরে যাবেন শেখ হাসিনা আর শেখ হাসিনা হেরে গেলে হেরে যায় বাংলাদেশ।

আপনার মন্তব্য লিখুন............